Home রংপুর মিঠাপুকুর মিঠাপুকুরে পেট্রোল বোমা ট্রাজেডি’র ৩ বছর : যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমা হামলায়...

মিঠাপুকুরে পেট্রোল বোমা ট্রাজেডি’র ৩ বছর : যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমা হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল ৬ যাত্রী

152
0
SHARE
Social Media Sharing

নিজস্ব সংবাদদাতা, মিঠাপুকুর (রংপুর)
রংপুরের মিঠাপুকুরে আজ আলোচিত বর্বোরোচিত বাসে পেট্রোল বোমা হামলার ৩ বছর পূর্তি। ২০১৫ সালের এই দিনে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীর ফতেপুর নামক স্থানে একটি যাত্রীবাহী নৈশ কোচে পেট্রোল বোমা হামলায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রাণ হারিয়েছিল ৬ জন নিরীহ যাত্রী। পৈশাচিক এই ঘটনায় ১৩২ জনের নামে চার্জ গঠন করা হয়েছে। আদালতে এর স্বাক্ষীগ্রহন চলছে। ব্যাপক তদন্ত করে পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনার সাথে জামায়াত-শিবির জড়িত।
সরেজমিন ঘুরে, পুলিশ ও এলাকাবাসির কথা বলে জানা গেছে, ৩ বছর আগে ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারী গভীর রাতে কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে ছেড়ে আসা ছেড়ে ঢাকাগামী খলিল এক্সক্লুসিভ এর একটি নৈশ কোচ (ঢাকা-মেট্রো-ব-১১-৬৮৬০) মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীর ফতেপুর নামক স্থানে পৌঁছামাত্র র্দুবৃত্তরা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে ঘটনাস্থলেই নারী ও শিশুসহ ৬ জন যাত্রী মারা যান। মারাতœক অগ্নিদগ্ধ হন ১২ জন। হতাহতদের অধিকাংশই কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা। মিঠাপুকুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক বাদী হয়ে এই ঘটনায় ৮৭ জন নাম উলে¬খ করে আরও অজ্ঞাত ৪০/৫০ জনের নামে সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী ২০১২) এর ৬/১২ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর- ১৯, তারিখ- ১৪/০১/২০১৫ইং। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মিঠাপুকুর থানার তৎকালীন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ১৩২ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। মিঠাপুুকুর থানার ওসি মোজাম্মেল হক বলেন, চার্জশিটভূক্ত ১৩২ জনের মধ্যে ১০০ জনের বেশি আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অনেকেই স্বেচ্ছায় আদালতে আতœসর্পণ করে জামিন নিয়েছেন। সব মিলিয়ে ১২৮ জন গ্রেফতারের আওতায় রয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগ আসামী জামিনে বের হয়েছেন। বাকি পলাতক ৪ জনকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা সকলেই স্থানীয় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী।’ বোমা হামলার ঘটনায় হতাহতদের উদ্ধার কাজে নেতৃত্বদানকারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন-অর রশিদ স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে বলেন, এখনও সেই রাতের মর্মাত্মিক দৃশ্যের কথা মনে হলে গা শিউরে উঠে। চোখ দিয়ে পানি ঝরে। তিনি বলেন- আমরা যখন হতাহতদের উদ্ধার করে হাতপাতালে পাঠাচ্ছিলাম, তখন ঘন কুয়াশার মাঝেও দেখা গেছে ঘটনাস্থলের একটু দুরের পুকুর থেকে অগ্নিদগ্ধ মানুষ ‘বাঁচাও বাঁচাও’ বলে উঠে আসছে। তাদের পরণে কোন বস্ত্র ছিল না। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় তারা জীবন বাঁচানোর জন্য ঘন কুয়াশার মাঝেও পুকুরে লাফ দিয়েছিল। রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বাংলাদেশে যাতে এ বর্বোরোচিত হৃদয় বিদারক ঘটনা না ঘটে দেশ বাসীর কাছে এটাই আমার প্রত্যাশা।’ বোমা হামলায় হতাহতদের পরিবারসহ মিঠাপুকুর উপজেলার সর্বস্তরের মানুষ বোমা হামলায় জড়িতদের কঠিন শাস্তি দাবি করেছেন।


Social Media Sharing

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here