Home উত্তরাঞ্চল বাহের দেশের সুস্বাদু খাবার ‘শোলকা’

বাহের দেশের সুস্বাদু খাবার ‘শোলকা’

37
0
SHARE
Social Media Sharing

ফরহাদুজ্জামান ফারুক/লাইফস্টাইল প্রতিবেদক
পাট শাক আর সোডা দিয়ে রান্না করা এক ধরণের খাবার ‘শোলকা’। এটা বাহের দেশখ্যাত রংপুর অঞ্চলের নিজস্ব ঐতিহের একটি প্রিয় খাবারের নাম। রংপুর অঞ্চল ছাড়া দেশের অন্যান্য অঞ্চলে জনপ্রিয় এই ‘শোলকা’ নামক খাবারটি তেমন পরিচিত নয়।
জনপ্রিয় এই খাবার রংপুরের বদরগঞ্জ, পীরগঞ্জ, তারাগঞ্জ, পীরগাছা, মিঠাপুকুর, গঙ্গাচড়া, কাউনিয়াসহ রংপুর বিভাগের আশপাশের কিছু কিছু উপজেলায় সুস্বাদু খাবার হিসেবে শোলকা রান্না হয়ে থাকে। এই শোলকা দিয়ে দ্রুত খাবার টেবিলের খাবার সাবাড় করা সম্ভব।
শাক দিয়ে ‘শোলকা’ রান্না করা হলেও ভিন্ন স্বাদের এই খাবার তৈরির প্রক্রিয়াটা একটু জটিল। অন্য সব শাক এর মতো শোলকার রান্না এক নয়। শোলকা রান্নার প্রধান উপকরণ পাটশাকের পাতা আর খাবার সোডা।
রংপুরের পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের বগুড়াপাড়া এলাকার রোজিনা জামান রোজ শোলকা রান্নায় পটু। তার কাছ থেকে শোলকা রান্নার কলাকৌশল নিয়ে কতা হয় আলোকিত সময়ের। এসময় তিনি জানান, শোলকা মূলত পাট চাষের সময় বেশি রান্না করা হয়। এসময় হাতের নাগালেই পাটশাকের পাতা বেশি পাওয়া যায়।
এই রাধুণী জানান, শোলকা রান্নার প্রধান উপকরণ পাটশাকের পাতা। এই পাতা কাটার ধরণটা একটু ভিন্ন। পাটশাকের পাতা গুছিয়ে গুছিয়ে মুঠো ভর্তি করে নিয়ে কুচি কুচি করে কাটতে হয়। পাটশাক যেহেতু একটু তিতে হয় তাই এর তিতেভাব কাটানোর জন্য আরও পাঁচ সাতটা শাকের পাতা একটুখানি করে দেয়া হয় শোলকার উপকরণ হিসেবে। এতে লাউশাকের পাতা, কুমড়োশাকের পাতা, পুইশাকের পাতা, কচুর পাতা, সজনে ডাটার পাতা, নাপাশাকের পাতাসহ হাতের নাগালে যা পাওয়া যাবে সেই শাকের পাতা কুচি কুচি করে এতে দেয়া যাবে।
এবার আসা যাক রান্নায়, শোলকার অন্যতম আরেকটা উপাদান হল খাবার সোডা। যা ছাড়া শোলকা রান্না করলে শোকলাই হবে না। রোজিনা জামান রোজ বলেন, শোলকাকে পিচ্ছিল করার জন্য এক চিমটি খাবার সোডা দেয়া হয়। প্রথমে একটু পানি গরম করতে করতে সেখানে পরিমাণ মত লবণ, কাঁচা মরিচ, রসুন এবং সোডা দিয়ে নেড়ে, কেটে রাখা পাটশাক দিতে হয়। এবার অল্প একটু আদা কুচি। ১০ থেকে ১৫ মিনিট হালকা আচে নাড়তে হয়, ব্যাস হয়ে গেলো প্রিয় ‘শোলকা’। আর শোলকার মধ্যে কাঁঠালের বিচি দিলে তো কথায় নাই, এর স্বাদ হয় আরও অসাধারণ।
এদিকে রংপুরের গ্রামীণ জনপদের জনপ্রিয় এই খাবার এখন সহজেই পাওয়া যায়। দিন বদলের হাওয়ার সাথে আধুনিকতার কাছে ‘শোলকা’ যেন হারিয়ে যেতে বসেছে। অথচ একটা সময় ছিলো এ অঞ্চলে কারো বাসায় মেহমান বা নিকট আতœীয় বেড়াতে এলে খাবারের তালিকায় এই শোলকাও থাকত। বর্তমান শহুরে জীবনে এই খাবার নতুন প্রজন্মের কাছে খুব একটা পরিচিত না হলেও গ্রামীণ জনপদে এখনো রয়েছে শোলকার কদর।


Social Media Sharing

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here