Home উত্তরাঞ্চল নীলফামারী ডোমারে মন্দিরের প্রসাদ খেয়ে নারী,শিশুসহ অর্ধ শতাধিক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত

ডোমারে মন্দিরের প্রসাদ খেয়ে নারী,শিশুসহ অর্ধ শতাধিক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত

82
0
SHARE
Social Media Sharing

 

নীলফামারী সংবাদদাতা
নীলফামারীর ডোমারে মন্দিরের প্রসাদ খেয়ে একই গ্রামের অর্ধ শতাধিক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে আজ রোববার(১১/০২/২০১৮) বিকেল পর্যন্ত মহিলা,শিশু ও বৃদ্ধসহ ২২ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে অবস্থার অবনতি হওয়ায় ৬ শিশুকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিরা নিজ নিজ বাড়ীতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
ঘটনাটি ঘটেছে,ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের নয়ানী বাকডোকরা সাধুপাড়া গ্রামে। সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে,ওই গ্রামের কৃষ্ণ চন্দ্র রায়ের গাভীর গত এক মাস আগে একটি এড়ে বাছুর জন্ম নেয়। এ জন্য তিনি শনিবার বিকালে স্থানীয় মন্দিরে প্রসাদ তৈরী করে গ্রামের লোকজনদের খাওয়ান। এই প্রসাদ খেয়ে মহিলা,শিশু, ও বৃদ্ধসহ অর্ধ শতাধিক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়ে। রোববার সকাল থেকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ২২জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশীর ভাগই শিশু। আক্রান্তরা হলেন হলেন-জিয়ান্ত রায়(৮), উৎসব চন্দ্র রায়((৮),পলাশ চন্দ্র রায়((১২),বিপুল চন্দ্র রায়(৭),রিপন চন্দ্র রায়(১০), অরন্য চন্দ্র রায়(৪),অর্পন চন্দ্র রায়(৭),সাথি(২),সুব্রত চন্দ্র রায়(৬), শুকাতু রায়(৬৫),দিলিপ চন্দ্র রায়(১১) কনক রায়(৭),মায়া রানী(৮), রবীন্দ্র নাথ(২),জোতিষ চন্দ্র রায়(১৪)। হাসপাতালে জিয়ান্ত রায়ের মা রনকা রানী জানায় শনিবার বিকেলে প্রসাদ খাওয়ার পর রাত থেকে সকলেরই বমি এবং পাতলা পায়খানা শুরু হয়। রাত যতই গভীর হতে থাকে ততই আক্রান্তের সংখা বাড়তে থাকে। এদিকে ওই গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, নিজ বাড়ীতে স্যালাইন লাগিয়ে অনেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. নাছিমা হক জানান,আক্রান্তদের মধ্যে শিশুর সংখ্যা বেশী। এদের মধ্যে অনেকের শরীরে খিচুনী শুরু হয়েছে। গুরুত্বর ৬ শিশুকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান।


Social Media Sharing

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here