Home উত্তরাঞ্চল দিনাজপুর আশঙ্কার মধ্যে হল ছাড়লেন হাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীরা : শিক্ষকদের দ্বন্দ্বের জের

আশঙ্কার মধ্যে হল ছাড়লেন হাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীরা : শিক্ষকদের দ্বন্দ্বের জের

28
0
SHARE
Social Media Sharing

দিনাজপুর অফিস

প্রশাসনের নির্দেশে আশঙ্কার মধ্যে আবাসিক হল ছাড়লেন দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)’র শিক্ষার্থীরা। এক মাসের জন্য হল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গবেষণা কার্যক্রম ও পড়ালেখার ক্ষতির পাশাপাশি সেশনজটের আশঙ্কা করেছে শিক্ষার্থীরা।

সোমবার বিকেলে রিজেন্ট বোর্ডের এক জরুর সভায় উদ্ভুত পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ ডিসেম্বর থেকে ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে প্রশাসন। একইসাথে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হলত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশ মোতাবেক আজ ৪ ডিসেম্বর  মঙ্গলবার সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬টি হলের প্রায় ৪ হাজার শিক্ষার্থী হল ছাড়তে শুরু করে। হল ছাড়াও এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় ১২ হাজার। হঠাৎ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছুটি ও হল ত্যাগ করার ঘোষণায় শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, এতে করে পড়ালেখা, গবেষণা কার্যক্রমে ক্ষতির পাশাপাশি সেশনজটের মধ্যে পড়তে হবে তাদেরকে। বিশ্ববিদ্যালয় ও হল বন্ধের প্রতিবাদে মানববন্ধনও করেছে শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, শিক্ষকদের নিজেদের মধ্যে যে সমস্যা হয়েছে তাতে করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। হল বন্ধ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছুটি না দিয়েই আলোচনার মাধ্যমে শিক্ষকদের সমস্যার সমাধান করা যেত। কিন্তু প্রশাসন বিষয়টিতে গুরুত্ব না দিয়ে ছুটি ঘোষণা করেছে। এতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

পদোন্নতিপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের মারধোর, লাঞ্ছিত ও নারী শিক্ষকদের শ্নীলতাহানির ঘটনায় গত ১৫ নভেম্বর থেকে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন করছিলেন বিশ্ববিদ্যায়ের দেড় শতাধিক শিক্ষক। আন্দোলনের গতি বেগবান হওয়ায় এবং প্রশাসন কোনো সুরাহা করতে না পারায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তা নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স লেভেল-১, সেমিস্টার-১ এর ভর্তি পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়। এরই মধ্যে রোববার রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ এনে আন্দোলনকারী ২ শিক্ষককে সাময়িক বহিস্কার করে প্রশাসন। এর প্রতিবাদে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে, পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে রেজিস্ট্রারকে মুক্ত করে।

তদন্ত ছাড়াই ২ শিক্ষককে সাময়িক বহিস্কার করায় বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার কথা ভাবছিল শিক্ষকরা। এমন পরিস্থিতিতে হঠাৎ করে রিজেন্ট বোর্ডের জরুরি সভা ডেকে বিশ্ববিদ্যালয় এক মাসের ছুটি ঘোষণা করে প্রশাসন। একইসঙ্গে দুপুর ১২টার মধ্যে হলত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়।


Social Media Sharing

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here